আ.লীগে যোগ দিয়েই ‘বেপরোয়া’ বিএনপি নেতা, সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ ৫

জেলার শ্যামনগরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষে পাঁচজন গুলিবিদ্ধসহ অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে। প্রায় দু’ঘণ্টাব্যাপী চলা সংঘর্ষ থামাতে পুলিশ রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

রোববার (১৮ আগস্ট) দুপুর ২টার দিকে উপজেলার বংশীপুর বাসস্ট্যান্ডে ঈশ্বরীপর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শোকর আলী এবং উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সদ্য আওয়ামী লীগে যোগদান দেওয়া নেতা সাদেকুর রহমান সাদেমের সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতদের মধ্যে- আক্তার আলী, আব্দুস সালাম, আব্দুল আলিম, আবু সাইদ, নুর মোহাম্মদ, আবদুল বারেক, আওসাফুর, সফিকুল ও শাহ আলমের নাম জানা গেছে। এদের মধ্যে গুলিবিদ্ধ আক্তার আলী, আব্দুস সালাম, আব্দুল আলিম, আবু সাইদ, নুর মোহাম্মদকে প্রথমে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাদের খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, ভোরে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শোকর আলীর কর্মী আব্দুল আলিম সদ্য আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়া সাদেকুর রহমানের সমর্থক আসমতকে মারধর করে। এর জেরে দুপুরে উভয়পক্ষের সমর্থকরা লাঠিসোটা নিয়ে বংশীপুর বাসস্ট্যান্ডে অবস্থান নেয়। পরে একপক্ষ অপরপক্ষকে লক্ষ করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করলে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। দু’ঘণ্টা ধরে চলা এ সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ৩০ জন আহত হয়েছে।

চেয়ারম্যান শোকর আলি জানান, শ্যামনগর উপজেলা বিএনপি সম্পাদক সাবেক চেয়ারম্যান সাদেকুর রহমান সাদেম সম্প্রতি স্থানীয় সংসদ সদস্য এসএম জগলুল হায়দারের হাতে ফুল দিয়ে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন। এরপর থেকে তার আচরণ ছিল বেপরোয়া। এ কারণেই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে সাদেকুর রহমান বলেন, ‘লক্ষ্মী সিনেমা হলের কাছে চেয়ারম্যান শোকর আলির সমর্থকরা গাঁজা খাচ্ছিল। এতে আমার কর্মীরা তাদের বাধা দেয়। এই নিয়ে শুরু হয় বিরোধ ও মারামারি। পরে চেয়ারম্যান শোকর আলি ও তার ভাই গোলাম মোস্তফা বাংলা ভাই হেলমেট পরে মোটরসাইকেলে বন্দুক নিয়ে এসে গুলি ছোড়ে। এর জেরেই সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে।’

শ্যামনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কমকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান বলেন, ‘আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে ২৯ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়া হয়। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তবে সংর্ঘষের সময় গোলাগুলি হয়েছে কিনা তা আমার জানা নেই। তবে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ ও লাঠিসোটা নিয়ে সংঘর্ষ হয়েছে।’ ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে বলেও জানান তিনি।

সারাবাংলা

Loading...

About চিফ ইডিটর

View all posts by চিফ ইডিটর →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.