আমার বেঁচে থাকা মৃত্যুর থেকেও কষ্টকর -প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর খুনিদের সঙ্গে জিয়াউর রহমানের যোগাযোগ ছিল। তারা জিয়াউর রহমানের কাছ থেকে ইশারা পেয়েছিল। খুনিদের এমন মনোভাব ছিল যে তাদের কিছুই হবে না। বিবিসির সাক্ষাতকারে খুনি ফারুক-রশিদ নিজেরাই এসব কথা স্বীকার করে গেছে।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (১৬ আগস্ট) জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সব কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধুর শাসনামলের কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতার সময়ে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম ৭ ভাগ প্রবৃদ্ধি অর্জন হয়েছিল। চালের দাম ১০টাকা থেকে ৩ টাকায় নেমে এসেছিল। স্বাধীন বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা যখন ব্যাহত করা যাচ্ছিল না তখনই ষড়যন্ত্র করে জাতির পিতাকে হত্যা করা হয়।’

এরপর ক্ষমতায় এলো জিয়াউর রহমান। তিনি সামরিক আইন লঙ্ঘন করে অবৈধভাবে ক্ষমতায় এলেন। বন্দুকের নলের জোরে প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ সায়েমকে সরিয়ে দিয়ে ক্ষমতা দখল করে। তিনি হ্যাঁ/না ভোটের আয়োজন করে প্রেসিডেন্ট হয়েছিলেন। এরপর তিনি রাজনৈতিক দল গঠন করলেন। জিয়াউর রহমান ও হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের শাসনামল ছিল অবৈধ। হাইকোর্ট রায় দিয়ে তাদের শাসন কে অবৈধ ঘোষণা করেছে। সুতরাং তাদের প্রেসিডেন্ট বলা যায় না। তারা হলেন অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী।

Loading...

About চিফ ইডিটর

View all posts by চিফ ইডিটর →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.